Deshersamoy.com

bangla news 24/7

আমার ওয়ার্ডে স্বচ্ছতা রেখে ত্রাণ বিতরণ করে যাচ্ছি

স্টাফ রিপোর্টার : ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের নবগঠিত ৫০ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও ঢাকা মহানগর উত্তর যুবলীগের সহ-সভাপতি ডি এম শামীম বিগত ৫ এপ্রিল থেকে এখন পর্যন্ত ১০৪৭০ পরিবার মাঝে স্বচ্ছতা রেখে ত্রাণ বিতরণ করেছেন।

নানা প্রতিকূলতার মাঝেও স্বচ্ছতা বজায় রেখে গত ৫ এপ্রিল ব্যক্তিগত উদ্যোগে সর্ব প্রথম করোনার প্রভাবে বিপর্যস্ত গরীব মেহনতী খেটে খাওয়া মানুষ যারা রয়েছেন এমন ৫০০০ পরিবারের মাঝে ত্রাণ সামগ্রী উপহারের মধ্য দিয়ে ত্রাণ বিতরণ কার্যক্রম শুরু করেন।

পর্যায়ক্রমে তা বেড়ে ৭৪০০ হয়ে থাকে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দেওয়া উপহারও ৫০নং ওয়ার্ডের নিম্ন, নিম্ন-মধ্যবিত্ত, খেটে খাওয়া,দিনমজুর,শ্রমিক,বূয়া, চাকরীচ্যুত সকলের মাঝে ওয়ার্ডের ১২ কমিটি তৈরি করে, সেই কমিটির মাধ্যমে রাত- বিরাতে ত্রাণ উপহার পৌঁছে দেওয়া হয়।

৫০ নং ওয়ার্ডের ত্রাণ বিতরণের ব্যাপারে কাউন্সিলর ডিএম শামীমের সাথে একান্ত সাক্ষাতকালে তিনি বলেন, আমি ব্যক্তিগতভাবে এখন পর্যন্ত ৭৪০০ পরিবারের মাঝে সর্বমোট ৩৮ টন চাল, ১৫ টন আলু, ৭টন লবণ ,৪ টন তেল ,৭ টন ডাল ,৭টন পেঁয়াজ এবং ৭৪০০ পিস সাবান প্রদান করা হয়।
এবং মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার পাঠানো উপহার ১২ কমিটির মাধ্যমে ৪ শিফট সময় করে প্রতিদিন দুপুর ২থেকে বিকাল ৪ টা, ৪ টা থেকে ৬টা,৭টা থেকে ৮টা,৮টা থেকে ১১টা পর্যন্ত প্রাণঘাতী করানোর প্রভাবে অসহায়-দুস্থ, খেটে খাওয়া মানুষের মাঝে উপহার সামগ্রী প্রদান করা হচ্ছে।
শিশুদের দুধের জন্য নগদ এক লক্ষ টাকা বরাদ্দ করা হয়েছে।

প্রধানমন্ত্রীর পাঠানো উপহার এখন পর্যন্ত ৩০০০ পরিবারকে প্রদান করা হয় যার মধ্যে ১৫টন,৩৫১ কেজি চাউল, ৬৫৪০ কেজি আলু, ১০৭০ কেজি লবণ, ১০৭০ কেজি তেল, ১০৭০ কেজি ডাল, ১০৭০ কেজি পেঁয়াজ, ১০৭০ পিস সাবান, ও শিশুদের জন্য ৪৫ প্যাকেট মিল্কভিটা দুধ ছিল।

ত্রান বিতরণ কার্যক্রম সচ্ছ থাকার জন্য আমি নিজে ১২টি কমিটি করে দেই আমার ৫০ নং ওয়ার্ডে, সেই প্রত্যেকটি কমিটিতে ১০ জন করে কর্মী রয়েছেন তারা রাতদিন কাজ করে অসহায়-দুস্থ খেটে,খাওয়া যারা দুঃখে কষ্টে রয়েছে তাদেরকে খুঁজে বের করে থাকেন এবং তাদের মাধ্যমেই আমরা ৫০ নং ওয়ার্ডের করোনার ফলে বিপর্যস্ত সকল মানুষ গুলোকে আমরা খাবার বিতরণ করে যাচ্ছি।

ত্রাণ বিতরণ কার্যক্রম পরিচালনা করতে কোন প্রতিকূল পরিবেশ বা সমস্যা পোহাতে হচ্ছে কিনা এই ধরনের প্রশ্নের জবাবে তিনি জানান, আমার অফিসে শিক্ষিত, অশিক্ষিত, জ্ঞানহীন সকল লোকই আসেন আর কিছু লোকা আসেন শুধুমাত্র বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করার জন্য, আর সেই অল্প বিশৃঙ্খলা পুজি করে
কিছু লোক ও হাতেগোনা দু’একটি অসাধু সাংবাদিক যারা আমাদের মত মাথার ঘাম পায়ে ফেলে অর্থ উপার্জন করে,সেই নিজস্ব অর্থায়নে যখন আমরা খাবার সামগ্রী জনগণের মাঝে বিতরণ করি ঠিক তখনই তাদের নিজের স্বার্থসিদ্ধির জন্য ও আমাদের মান সম্মান অক্ষুন্ন করার জন্য উদ্দেশ্যপ্রণোদিত হয়ে কিছু প্রতিবেদন করে থাকেন, এমন অসাধু সাংবাদিক এবং অসাধু লোক প্রায় সব জায়গায় দু-চারটি থাকে। আমরা আমাদের কাজ সুষ্ঠু স্বচ্ছ ভাবে করে যাচ্ছি ইন্সআল্লাহ, তবে ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের মেয়র এবং আমাদের মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে আকুল আবেদন এই ধরনের মুষ্টিমেয় অসাধু সাংবাদিকদের প্রতিহত করার জন্য ব্যবস্থা গ্রহণ করার আহ্বান জানায়।
যাদের কারণে আমাদের উৎসাহ-উদ্দীপনা থমকে দাড়ায়।আর আমি ব্যক্তিগতভাবে ধিক্কার জানাই এবং ৫০ নং ওয়ার্ড বাসীকে এদের থেকে দূরে তার জন্য আহ্বান জানায়।

নাম না বলা শর্তে ৫০নং ওয়ার্ডের একাধিক জনগণের সাথে সরেজমিনে কথা বলে জানা যায়, কাউন্সিলরের ত্রান বিতরণের পদ্ধতির ভালো থাকার কারণে ওয়ার্ডের সর্বস্থরের অসহায় লোকদের কাছে উপহার সামগ্রী পৌঁছে যাচ্ছে।

(Visited 1 times, 1 visits today)

Leave a Reply

Copyright © 2019-2021 All rights reserved and protected Frontier Theme
%d bloggers like this: