মঙ্গলবার, ০২ মার্চ ২০২১, ০৪:৫৭ পূর্বাহ্ন

প্রেমীদের কাছে মিনি কক্সবাজার, ধলার মোড় প্রকৃতি

  • প্রকাশের সময়: মঙ্গলবার, ১২ জানুয়ারী, ২০২১
  • ২৭ দেখেছেন
ধলার মোড় প্রকৃতি প্রেমীদের কাছে মিনি কক্সবাজার

ফরিদপুর শহরের নান্দনিক প্রাকৃতিক বিনোদনের একমাত্র জায়গা টেপাখোলা মদনখালী এলাকার ধলাম মোড়। প্রকৃতি প্রেমীদের পদচারণায় আজ এটি হয়ে উঠেছে মিনি কক্সবাজার।

অবসর সময় কাটাতে পরিবারের কোমলমতি শিশুদের প্রকৃতি দর্শনে অথবা তাদের শুভ্র বিকাশের অন্যতম জায়গা ধলার মোড়। ছুটির দিনে কিংবা মন খারাপ হলে ঘুরে বেড়ানোর দরকার হলে এই মিনি কক্সবাজারে গেলেই প্রকৃতি মনকে দোলা দিয়ে আনন্দিত করে দিবে।

শীতকালিন মৌসূমে পদ্মার পানি কম থাকায় বিস্তৃন চর জাগায় বছরের মাত্র কয়েকমাই এ মনোমুগ্ধকর প্রাকৃতিক দৃশ্য পাওয়া যাবে ধলার মোড়ে।

এ ধলার মোড় মিনি কক্সবাজার হবার আগে অনেক ইতিহাস রয়েছে। যা আজ চির অতীত।

পদ্মা নদী বেষ্ঠিত ফরিদপুর জেলা। পদ্মা নদী রাজবাড়ী জেলা হয়ে এ জেলার সদর উপজেলার তিনটি ইউনিয়নসহ দুটি উপজেলার মধ্য দিয়ে বহমান মাদারীপুর, শরীয়তপুর জেলার দিকে। আর ফরিদপুর শহরের টেপাখোলা মদনখালি এলাকার ধলার মোড় এলাকা পদ্মা নদীর বড় একটি মোহনা। আর এখানেই পদ্মা নদীর চর পড়ে তৈরি হয়েছে সৌন্দর্যময় একটি প্রাকৃতিক নান্দনিক দৃশ্য।

এ ধলার মোড় একসময় এ রককম ছিল না। পদ্মা কৃর্তিনাশা নদী। যার এক কুল ভাঙ্গে আর এক কুল গড়ে। এই ধলার মোড় নামক পদ্মা বেষ্ঠিত এলাকাটি একসময় ছিল সদর উপজেলার ডিক্রীরচর ইউনিয়নের কয়েকটি গ্রাম। পাশেই ছিল নর্থ চ্যানেল ইউনিয়ন। যে গ্রাম গুলো আজ দেশের মানচিত্র থেকে নিঃশেষ হয়ে গেছে। আর এই মদনখালি এলাকা থেকেই পদ্মা নদীর দুটি নদ- কুমার নদ ও ভুবনেশ্বন নদ সৃষ্টি হয়েছে। কুমার নদ ফরিদপুর শহরের মধ্য দিয়ে কয়েকটি উপজেলা ঘুরে গোপালগঞ্জের বিলে গিয়ে সমাপ্ত হয়েছে। আর ভুবনেশ্বন নদটি ভূমি দোস্যুদের পেটে গিয়ে আজ বিলুপ্ত প্রায়।

ফরিদপুর শহরের ধলারমোড় হতে উত্তর-পশ্চিমে প্রায় ১০ কিলোমিটার এবং দক্ষিন পূর্বে ১০ কিলোমিটার এলাকায় চর যেগে উঠার বিনোদনের জন্য অপূর্ব একটি নান্দনিক দৃশ্য তৈরি হয়।

মিনি কক্সবাজারে ছুটির দিনে ভীড় ঠেলে মনে দোলা পেতে বিকেল বিকেলই চলে যেতে হবে। এখানে খাবারের পাবেন চটপটি, ফুসকা, হালিমসহ আরো নানা খাদ্য সামগ্রী। এছাড়াও বিনোদন স্পট ক্ষ্যাত হওয়ায় গয়ে উঠেছে কয়েটি আভিজাত হোটেল। পদ্মার বুকে জেগে উঠা চরে একাকী শীতল বাতাস খেতে খেতে সময় কাটাতে পাবেন ভাড়ায় চেয়ার। চরের মাঝে পরিবার নিয়ে ঘুরতে ভাড়ায় পাওয়া যাবে ঘোড়ার গাড়ি। আবার বিস্তৃন জেগে উঠা চরে নিজেকে ভুলে হাটতে হাটতে হারিয়ে যেতে পারেন।
শহরের খুব সন্নিকটে হওয়ায় ছুটির দিন সহ সকল দিনেই প্রকৃতি প্রেমিদের ভীড় লেগেই থাকে। ফরিদপুর শহরে বা এ জেলায় বেড়াতে আসতে চাইলে যে কেউই বিনোদনের জন্য এই প্রকৃতিক মনোরম পরিবেশে একবার ঘুরে আসতে পারেন। ফরিদপুর শহর থেকে যে কোন অটোবাইকে চড়ে সহজেই চলে যেতে পানে ধালার মোড় মিনি কক্সবাজারে।

ভালো লাগলে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরির অনন্য সংবাদ
এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি। সর্বসত্ব ® Deshersamoy.com কর্তৃক সংরক্ষিত।
Design & Developed By BlogTheme.Com