শুক্রবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৫:০৭ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
বিশ্ব ব্যক্তিগত গাড়িমুক্ত দিবস মানবিক শহর গড়তে প্রয়োজন হাঁটা ও সাইকেলবান্ধব পরিবেশ যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কে অনুষ্টিত হল বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ ২০২০ “ দে‌বিদ্বার উপ‌জেলা স্টুডেন্টস অ্যা‌সো‌সি‌য়েশন অব তিতুমীর ক‌লেজ (ডুসা‌ট)’র ক‌মি‌টি ঘোষনা মুজিবের বাংলাদেশে মাওলানা আহমদ শফী দ্বীনের জন্য আমৃত্যু কাজ করেছেনঃ এনডিপি অসহনীয় লোডশেডিংয়ে ডেমড়ায় ভ্যাপসা গরমে অতিষ্ঠ জনজিবন শাহ আহমেদ শফি’র শেষ বিদায় জানাতে হাটহাজারীতে মানুষের ঢল নাসিম-সাহারা খাতুন বঙ্গবন্ধুর আদর্শের পথে থেকে জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বের প্রতি সর্বদাই আস্হাশীল ছিলেন-মন্ত্রীবর্গ ও আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দ কুমিল্লার বাসের দরজা-জানালা বন্ধ করে তরুণীকে গণধর্ষণ; আটক ২ পলাতক ১ কিশোরগঞ্জ জেলা আইনজীবী সমিতির “ রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ভবন” নির্মিত হতে যাচ্ছে
করোনার ভয়ে আসেনি কেউ, এগিয়ে এলেন সাংবাদিক

করোনার ভয়ে আসেনি কেউ, এগিয়ে এলেন সাংবাদিক

করোনার ভয়ে আসেনি কেউ, এগিয়ে এলেন সাংবাদিক

রবিবার দুপুরে মুগদা হাসপাতালে করোনার টেস্ট করাতে আসা ব্যক্তিদের ভিড়ের ছবি তুলতে এসেছিলেন ফটো সাংবাদিক রুবেল রশিদ এব ফটো সৌরভ লস্কর। কিন্তু এসে যা দেখলেন তা রীতিমতো অমানবিক। হাসপাতালের সামনে প্রখর রোদে এক তরুণ বেহুশ হয়ে পড়ে আছে। তার ধারে কাছে কেউ যাচ্ছে, ভয় করোনার ভয়।

ফটোসাংবাদিক রুবেল মানলেন না, তার কাছে ধরা দিলো মানবিকতা বড় ধর্ম। সকল ভয়কে পাশ কাটিয়ে তরুণের পাশে চলে গেলেন। তাকে একটু পানি খাওয়ানোর চেষ্টা করেন রুবেল, ছেলেটি বেঁচে আছে। পানি খেতেই স্বাভাবিক হওয়ার চেষ্টা করে। এরপরেই মাথায় পানি ঢালা হয়।

তরুণ নিজেই জানায়, তার বোনের সঙ্গে এখানে এসেছিলেন। পরীক্ষার জন্য লাইনে দাঁড়িয়ে বেহুঁশ হয়ে পড়লে বোন তাকে ওভাবেই রেখে যায়। তরুণের নাম আল আমিন।

যুবকটি জানান, তার নাম আল আমিন। রাজধানীর পুরান ঢাকার নয়াবাজার এলাকায় তার চায়ের দোকান আছে। কয়েকদিন থেকে সর্দি-জ্বরে ভুগছেন। তাই বোনকে নিয়ে মুগদা হাসপাতালে করোনার নমুনা দিতে এসেছিলেন।

বিষয়টি নিয়ে গণমাধ্যম কর্মী নওশাদ জামিল সোশ্যাল হ্যান্ডেলে লিখেছেন, করোনাভাইরাস কাউকে কাউকে কত অমানবিক বানিয়ে দেয়, এ ছবি তার প্রমাণ! ক্যাপশন ও খবর থেকে জানা গেল, বড়বোন তার ছোট ভাইকে নিয়ে করোনাভাইরাস পরীক্ষার জন্য এসেছিলেন মুগদা জেনারেল হাসপাতালে। সারাদিন ঘোরাঘুরি করেও পরীক্ষা করার সুযোগ পাননি। অতঃপর বোন তার ছোটভাইকে ফেলে রেখেই পালিয়ে যান। ছোট ভাই আল-আমীন জ্বরের ঘোরে অচেতন হয়ে পড়ে আছেন একটু চিকিৎসার আশায়, একটু মায়া-মমতার আশায়।

(তথ্য সুত্রঃ দৈনিক কালের কন্ঠ)

ভালো লাগলে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি। সর্বসত্ব ® দেশের সময়.কম কর্তৃক সংরক্ষিত।