মঙ্গলবার, ০১ ডিসেম্বর ২০২০, ০৬:২১ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
হাতিয়ায় ছাত্রদলের পদবঞ্চিতদের জুতা ঝাডু নিয়ে বিক্ষোভ মিছিল প্যারেডবিহীন করোনাকালের হ্যালোইন উৎসব ;  তানিজা খানম জেরিন মনে পড়ে ফুলনদেবীর কথা ? “ রুখে দাও ধর্ষণ “ নিউইয়র্ক গভর্নরের সর্বোচ্চ সম্মান পেল বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত সুবর্ণ “কবি সফিক আলম মেহেদী ও সঙ্গীত শিল্পীর শিরিন আক্তার চন্দনার বিয়ে” সকল গৌরবময় ইতিহাসের স্বাক্ষী জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় অন্য সবকিছুর মতো মার্কেটিংও অতিক্রম করছে সংকট সন্ধিক্ষণ লালমনিরহাটে ছাত্রী ধর্ষণের দায়ে মামলা লালমনিরহাটে মাটির নিচে দ্বিতীয় বিশ্ব যুদ্ধ বিমানের ধ্বংসাবশেষের উদ্ধার বোনের বাড়িতে বেড়াতে এসে ১৫ দিন ধরে নিখোঁজ বুড়িচংয়ের মরিয়ম
চান্দিনায় ভাইস চেয়ারম্যানের হাতে উপ-সহকারি প্রকৌশলী লাঞ্ছিত!

চান্দিনায় ভাইস চেয়ারম্যানের হাতে উপ-সহকারি প্রকৌশলী লাঞ্ছিত!

চান্দিনায় ভাইস চেয়ারম্যানের হাতে উপ-সহকারি প্রকৌশলী লাঞ্ছিত!

চান্দিনা (কুমিল্লা) প্রতিনিধি : কুমিল্লার চান্দিনায় কাজ সমাপ্ত হওয়ার পূর্বেই বিল পরিশোধ না করায় উপ-সহকারি প্রকৌশলীকে লাঞ্ছিত করল উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মো. জহিরুল ইসলাম মুন্সি।

বৃহস্পতিবার (২৫ এপ্রিল) দুপুর ১টায় উপজেলার স্থানীয় সরকারি প্রকৌশল কার্যালয়ে এ ঘটনা ঘটে।

হামলাকারী জহিরুল ইসলাম মুন্সি উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যানের পাশাপাশি উপজেলা আওয়ামী যুবলীগ আহবায়ক।

এ ঘটনার পর বিষয়টি ধামাচাপা দিতে উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান কার্যালয়ে সমঝোতা করেন উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা তপন বক্সী।

উপজেলা প্রকৌশল দপ্তরের একাধিক সূত্র জানায়- ভাইস চেয়ারম্যান জহিরুল ইসলাম মুন্সির নিজ বাড়ি গল্লাই গ্রামের একটি সড়ক সংস্কার এবং একই গ্রামের অপর একটি সড়কের উন্নয়ন কাজের প্রায় ৭ লাখ টাকার ঠিকাদারী দায়িত্ব নেন তিনি। একটি কাজ অসমাপ্ত এবং অপর একটি কাজ ত্রুটিপূর্ণ অবস্থায় বিল পরিশোধ করার জন্য চাপ সৃষ্টি করেন ভাইস চেয়ারম্যান। ওই বিল পরিশোধে বিলম্ব হওয়ায় বৃহস্পতিবার দুপুরে উপজেলা এলজিইডি কার্যালয়ে উপ-সহকারি প্রকৌশলীকে শারীরিক নির্যাতন করেন ভাইস চেয়ারম্যান। এক পর্যায়ে উপজেলা প্রকৌশলীর সাথেও খারাপ আচরণ করেন।

এ ব্যাপারে উপ-সহকারি প্রকৌশলী আবু সাঈদ জানান- বিল প্রদানের জন্য তিনি আমাকে প্রথমে ফোন করেন। আমি ত্রুটি পূর্ণকাজ মেরামত ও অসমাপ্ত কাজ সমাপ্ত করার জন্য অনুরোধ করি। তারপরও তিনি বিল প্রদানের জন্য চাপ দিলে আমি ফাইল প্রস্তুত করি। বৃহস্পতিবার দুপুরে আমার কার্যালয়ে এসে আমাকে প্রচন্ড গালাগালি করে গায়ে হাত তোলেন। বিষয়টি আমি উপজেলা প্রকৌশলী স্যারকে অবহিত করি। পরবর্তীতে উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বিষয়টি সমঝোতা করেন।

উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান জহিরুল ইসলাম মুন্সি জানান- ঠিকাদারী কাজের বিল নিয়ে একটু ঝামেলা হয়েছে। উপজেলা চেয়ারম্যান ও প্রকৌশলীসহ বসে আমাদের উভয়ের মধ্যে সমঝোতা করে দেন।

উপজেলা প্রকৌশলী মোল্লা আবুল কালাম আজাদ জানান- উপজেলা চেয়ারম্যান মহোদয় দুপক্ষকে নিয়ে বসে মিটমাট করে দিয়েছেন।

ভালো লাগলে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি। সর্বসত্ব ® দেশের সময়.কম কর্তৃক সংরক্ষিত।