শনিবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০১:৪২ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
আলামিয়া- নুরুল ইসলাম স্মৃতি ফাউন্ডেশন এর আয়োজনে পবিত্র কছিদা বুরদা শরীফ খতমে খাজেগান, খতমে শেফা শরীফও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত বিদেশে বসে ষড়যন্ত্র করে শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন সরকারকে ক্ষমতাচ্যুত করা যাবে না : হানিফ ইচ্ছে পূরন রক্তদান সংস্থা’র উদ্যােগে ফ্রি ব্লাড গ্রুপিং ক্যাম্পেইন বিশ্ব ব্যক্তিগত গাড়িমুক্ত দিবস মানবিক শহর গড়তে প্রয়োজন হাঁটা ও সাইকেলবান্ধব পরিবেশ যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কে অনুষ্টিত হল বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ ২০২০ “ দে‌বিদ্বার উপ‌জেলা স্টুডেন্টস অ্যা‌সো‌সি‌য়েশন অব তিতুমীর ক‌লেজ (ডুসা‌ট)’র ক‌মি‌টি ঘোষনা মুজিবের বাংলাদেশে মাওলানা আহমদ শফী দ্বীনের জন্য আমৃত্যু কাজ করেছেনঃ এনডিপি অসহনীয় লোডশেডিংয়ে ডেমড়ায় ভ্যাপসা গরমে অতিষ্ঠ জনজিবন শাহ আহমেদ শফি’র শেষ বিদায় জানাতে হাটহাজারীতে মানুষের ঢল
উপসচিব পদে পদোন্নতি পেলেন পিরোজপুরের কৃতিসন্তান আজাদ

উপসচিব পদে পদোন্নতি পেলেন পিরোজপুরের কৃতিসন্তান আজাদ

উপসচিব পদে পদোন্নতি পেলেন পিরোজপুরের কৃতিসন্তান আজাদ

পিরোজপুর প্রতিনিধি:পিরোজপুরের মেধাবী কৃতিসন্তান জনাব একেএম আবুল কালাম আজাদ গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের উপসচিব পদে পদোন্নতি লাভ করেছেন। সম্প্রতি জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের এক প্রজ্গাপনের মাধ্যমে গত ৬/৪/২০১৫ তারিখ হতে ভুতাপেক্ষভাবে সরকারের উপসচিব পদে তার পদোন্নতি

কার্যকর করা হলো। জনাব আজাদ বিসিএস প্রশাসন ক্যাডারের একজন কর্মকর্তা।

২০০১ সালে বিসিএস (প্রশাসন) ক্যাডারে যোগদানের মাধ্যমে পরিবেশ ও বন মন্ত্রণালয়ে সহকারি সচিব পদে তিনি কর্মজীবন শুরু করেন। চাকুরি জীবনে তিনি পরিবেশ ও বন মন্ত্রণালয় ছাড়াও জাতীয় বেতন কমিশন-২০০৮, আইএমইডি (উপপরিচালক), ইআরডি (সিনিয়র সহকারি সচিব) ও পরিকল্পনা কমিশনে (উপপ্রধান)সফলতার সাথে দায়িত্ব পালন করেন।

পিরোজপুরবাসীর গর্বের ধন তার উপসচিব হিসেবে পদোন্নতি পাওয়ায় আজাদকে তার বন্ধু-বান্ধব, আত্মীয়-স্বজন, সহকর্মীসহ পিরোজপুরের সকল শ্রেণীপেশার মানুয়েরা অভিনন্দন জানিয়েছন। এক প্রতিক্রিয়ায় আজাদ বলেন, সবাইতো পদোন্নতির আশা করে থাকে। পদোন্নতিতে আমিও আনন্দিত।সরকার যোগ্য মনে করে আমাকে পদোন্নতি দিয়েছে।

অতএব আমি সরকারের আস্থা পূর্ণ করতে চাই এবং দেশের কল্যাণে কাজ করে যেতে চাই। তিনি তার পদোন্নতিতে মহান আল্লাহ রাব্বুল আলামিনের কাছে শোকরিয়া আদায় এবং মাননীয় প্রধানমন্ত্রী,
জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী, মন্ত্রীপরিষদ সচিব, জনপ্রশাসন সচিবসহ সংশ্লিষ্টসকলের নিকট আন্তরিক কৃতজ্ষতা জানিয়েছেন। তার পদোন্নতিতে পুর্বাঞ্চল সাংবাদিক ইউনিটির সভাপতি ওমর ফারুক জালাল,সাধারন সম্পাদক সোহরাওয়ার্দী.এর পক্ষ হতে অভিনন্দন জানাচ্ছি এবং তার উজ্জ্বল ভবিষ্যত কামনা করি।

জন্ম ও পরিবার:

জনাব আজাদ ১৯৭৫ সালের, ১ জুন পিরোজপুর সদর উপজেলার, কদমতলা ইউনিয়নের
উত্তর পোরগোলা গ্রামে এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতা
মরহুম মোঃ শফর আলী হাওলাদার ছিলেন একজন গৃহস্ত ব্যক্তি এবং মা বেগম জোহরা
শফর একজন গৃহিণী।

জমিজমা, ভিটেবাড়ি ও ব্যবসা ছিলো তার বাবার পেশা। তার দাদা ছিলেন ব্রিটিশ ইন্ডিয়া পুলিশ সার্ভিসের একজন কর্মকর্তা যিনি স্বেচ্ছায় পুলিশ চাকুরি ছেড়ে দিয়েছিলেন। নয় ভাইবোনের মধ্যে তিনি ছিলেন ৭ম। তার অন্যান্য ভাই-বোনও উচ্চ শিক্ষিত ও সরকারের বিভিন্ন পদে কর্মরত আছেন। বড় বোন ও বড় ভাই সরকারি চাকুরি হতে অবসরপ্রাপ্ত। সত, মেধাবী, দক্ষ, ও চৌকস কর্মকর্তা জনাবআজাদ ২০০৩ সালে পিরোজপুর পৌরসভার ঐতিয্যবাহী শেখ পরিবারের বিশিষ্ট ব্যবসায়ী মরহুম মো: মজিবুর রহমান শেখ পান্না এর কনিষ্ট কণ্যা লাবনী আখতার লিপি এর সাথে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন।

ব্যক্তিগত জীবনে জনাব আজাদ ও লাবনী এর একমাত্র পুত্রসন্তান অনির্বাণ মাহির মনিপুর উচ্চ বিদ্যালয়ে ইংলিশ ভার্সনে ৯ম শ্রেণীতে অধ্যয়নরত।

শিক্ষা ও কর্ম:
পরিবার ও বন্ধু-মহল সূত্রে জানা গেছে ছোটবেলা থেকে প্রচন্ড মেধাবী ছেলেন জনাব আজাদ। প্রত্যাশিত ফলও পেয়েছেন জীবনের সব স্থরে। পিরোজপুরে জন্মগ্রহনকারী জনাব আজাদ তার প্রাথমিক শিক্ষা তাঁর বাপ-চাচার নিজস্ব ভিটায় প্রতিষ্ঠিত স্কুলে সম্পন্ন করেছেন।

উত্তর পোরগোলা প্রাথমিক বিদ্যালয়টি তার বাপ-চাচারা মিলে নিজস্ব যায়গায় প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। জানা যায়, ১৯৮৪ সালে তিনি পিরোজপুর জেলার প্রথম স্থান নিশ্চিত করে ট্যালেন্টপুল বৃত্তি পেয়েছিলেন। তিনি নিজ গ্রামে তার চাচার প্রতিষ্ঠিত মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে পড়াশোনা শুরু করেছিলেন এবং তাঁর বাপচাচারা তাদের নিজের জমি দান করেছিলেন। তিনি এ স্কুল থেকে ১৯৮৭ সালে জুনিয়র বৃত্তি পেয়েছিলেন।

১৯৮৯ সালে তিনি নিজের বিদ্যালয় পর্যায়ের কাজটি শেষ করার জন্য তাঁর ভাগ্নের সাথে একসাথে পড়াশুনার জন্য তাকে বাগেরহাটে তার বড় বোনের বাড়িতে যেতে হয়েছিলো। ১৯৯০ সালে তিনি বাগেরহাট জেলার এ ইউ এম হাই স্কুল থেকে কৃতিত্বেরসাথে বিজ্গান বিভাগ হতে ১ম বিভাগে এসএসসি পরীক্ষা পাস করে যশোর বোর্ডের বৃত্তি লাভ করেন।

তারপর তিনি ১৯৯২ সালে সরকারি সোহরাওয়ার্দী কলেজ,পিরোজপুরের থেকে বিজ্গন বিভাগ হতে ১ম বিভাগে এইচএসসি পরীক্ষা পাশ করেন।১৯৯৮ সালে তিনি খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ফরেস্ট্রি বিষয়ে বিএসসি (অনার্স) ডিগ্রি অর্জন করেন। একই বছর ১৯৯৮ সালে তিনি ২০তম বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিস পরীক্ষা (বিসিএস) পরীক্ষায় অংশ নিয়ে প্রথমবারই সফল হন। সকল প্রক্রিয়া শেষে ২০০১ সালে বিসিএস ক্যাডারে যোগদানের মাধ্যমে পরিবেশ ও বন মন্ত্রণালয়ে কর্মজীবন শুরু করেন। পরিবেশ ও বন মন্ত্রণালয়ে পোস্টিং চলাকালীন তিনি বাংলাদেশের বন উন্নয়নের জন্য অনেক গুরুত্বপূর্ণ প্রকল্প প্রণয়ন করেন।

তিনি দুলাহাজড়া সাফারি পার্ক, কুয়াকাটা ইকো-পার্ক, আলুটিলা ইকো পার্ক ইত্যাদি গঠনের জন্য সক্রিয়ভাবে জড়িত ছিলেন এবং ২০০৪ সালে তিনি জাপানে ‘এনভায়রনমেন্টাল ম্যানেজমেন্ট’ শীর্ষক আন্তর্জাতিক প্রশিক্ষণের জন্য জাইকা থেকে তিন মাসের ফেলোশিপ পান।

২০০৬ সালে তিনি Japanese স্টাডি বিষয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের জাপানি গবেষণায় পোস্ট গ্রাজুয়েট ডিপ্লোমা সম্পন্ন করেন। ২০০৬ সালে তিনি জার্মান সরকারের মর্যাদাপূর্ণ DAAD ফেলোশিপ অর্জন করেন এবং ২০০৮ সালে ড্রেসডেন ইউনিভার্সিটি অব টেকনোলজি থেকে ফরেস্ট ট্রপে দুই বছর মেয়াদি এমএসসি সম্পন্ন করেন।

জার্মানি থেকে ফিরে আসার পরে তিনি ৬ষ্ঠ জাতীয় বেতন কমিশন-২০০৮ এ কাজ করার জন্য নিযুক্ত হন। ২০০৯ সালে তিনি আইএমইডি, পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ে উপপরিচালক পদে বদলি হন এবং ২০১০ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিষয়ে পোস্ট গ্রাজুয়েট ডিপ্লোমা সম্পন্ন করেন। তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে জাপানিজ স্টাডিতে স্নাতকোত্তর কোর্স শুরু করেছিলেন।

তিনি ২০১২ সালে ইআরডিতে বদলী হন এবং একই বছর তিনি GRIPS ফেলোশিপ-এর অধীনে টোকিওর GRIPS থেকে পাবলিক পলিসিতে পিএইচডি করার জন্য জাপানে চলে আসেন।পিএইচডি ডিফেন্স শেষ কের থিসিস জমা দিয়ে এসেছেন। ২০১২-১৩ সালে তিনি GRIPSএর পিএইচডি প্রতিনিধি এবং টোকিও ক্লাবের সভাপতি নিযুক্ত হন। ২০১৮ সালে তিনি ডেপুটি চিফ পদে পদোন্নতি পান। এখন তিনি বাংলাদেশ পরিকল্পনা কমিশনে পানি সম্পদ অধিশাখায় উপপ্রধান (উপসচিব) পদে কাজ করছেন।

এ পদে কাজ করে তিনি সরকারের “পানি সম্পদ ব্যবস্থাপনায়” গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন। বৈদেশিক উচ্চতর শিক্ষা ছাড়াও তিনি দেশ-বিদেশের অনেক প্রতিষ্ঠান ও বিশ্ববিদ্যালয় হতে বিভিন্ন মেয়াদে প্রশিক্ষণ গ্রহণ করেন। তন্মধ্যে এনভায়রনমেন্ট ম্যানেজমেন্ট,প্রজেক্ট ম্যানেজমেন্ট, “Operation – Maintenance of Combined Cycle Power Plant” ট্রেইনিং ফর ট্রেইনার, Forestry Management. Flood Management. Public sector Management, financial Management। কর্মজীবনে তিনি দক্ষিন-পূর্ব এশিয়া, দুরপ্রাচ্য, আফ্রিকা, ইউরোপসহ বিভিন্ন দেশ ভ্রমণ করেছেন।

সফলতা ও সামাজিক কার্যক্রম:
বিসিএস পরীক্ষায় ১ম বারই টিকে যাওয়া তার জীবনের বড় সফলতা। প্রাথমিকে টেলেন্টপুলে বৃত্তি, জুনিয়র বৃত্তি, বোর্ড বৃত্তি, জার্মানির এমএসসি ডাড বৃত্তি ও জাপানের পিএইচডি বৃত্তি তার অন্যান্য সফলতা। এছাড়া কর্মজীবনে মানুষের ভালোবসাকেও তিনি সফলতা হিসেবে দেখেন। তিনি বিশ্বাস করেন মানুষকে ভালোবাসলে ভালোবাসা পাওয়া যায়।

তিনি যেখানেই থেকেছেন মানুষের সাথে ভালো আচরণ করেছেন।বিনিময়ে তিনিও ভালোবাসা পেয়েছেন। সরকারি চাকুরির পাশাপাশি জনাব আজাদ বিভিন্নসামাজিক কার্যক্রমে জড়িত। তিনি জাইকা এলামনি এসোসিয়েশন বাংলাদেশ এর কার্যনিবাহী কমিটির নির্বাচিত নির্বাহী সদস্য, জার্মান বিশ্ববিদ্যালয় গ্রাজুয়েট অব বাংলাদেশ এর কার্যনিবাহীকমিটির নির্বাচিত নির্বাহী সদস্য, জাইকা ভিলেজ এরনির্বাচিত যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক। নিজ জন্ম এলাকায় তিনি নিয়মিত যাতায়াত করেন এবং এলাকার সার্বিক সামাজিক কার্যক্রমে অংশগ্রহণ করে থাকেন।

প্রত্যাশা:
জনাব আজাদ পিরোজপুরের উন্নয়নে সহযোগিতা করবেন বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন।বিশেষ করে পিরোজপুরে একটি পূর্নাঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয়, একটি মেডিকেল কলেজ, শহর ও গ্রামীণ এলাকার রাস্তাঘাট উন্নয়ন, নদী ভাঙ্গন রোধ ও একটি উন্নতমানের স্টেডিয়াম প্রতিষ্ঠা করার বিষয়ে তিনি চাকুরিজীবনের শুরু থেকেই সোচ্ছার। সেইসাথে আমাদেরও প্রত্যাশা আজাদের হাত ধরেই পিরোজপুরের কাঙ্খিত উন্নয়নের ছোয়া লাগুক। পিরোজপুরের গৌরব ও যোগ্য সন্তান হিসেবে তার আরও পদোন্নতি কামনা করি
যাতে তিনি পিরোজপুর তথা দেশের উন্নয়নে অবদান রাখতে পারেন। তিনিপিরোজপুরবাসীর কাছে তার কর্মজীবনে সার্বিক সাফল্যের জন্য সকলের দোয়া ও সহযোগিতা কামনা করেছেন।

ভালো লাগলে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি। সর্বসত্ব ® দেশের সময়.কম কর্তৃক সংরক্ষিত।